1. dssangbad1@gmail.com : dss :
  2. admin@news.eswadhinsangbad.com : admin :
ছয় টাকা দিয়ে খালপাড়ে মেসে থাকতাম: পরিকল্পনামন্ত্রী - দৈনিক স্বাধীন সংবাদ
সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
ডেমরায় আবাসিক হোটেল থেকে অসামাজিক কাজের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১১ গণতন্ত্র ও মানবাধিকার ইস্যু সুশীল সমাজের সঙ্গে সরকারকে যুক্ত থাকার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম নিয়ন্ত্রণ সরকারের উদ্দেশ্য নয় : আইনমন্ত্রী গলায় দড়ি দিলেন মা ছেলে-মেয়েকে বিষ খাইয়ে ঢাকা জেলার ধামরাই এলাকা হতে ৯৮০ গ্রাম হেরোইনসহ ০১ জন মাদক কারবারি’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ আশুলিয়ায় চোর সন্দেহে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা,গ্রেফতার-২ মুরাদনগর উপজেলার ২নং আকুবপুর ইউনিয়নের উদ্যোগে আওয়ামী লীগের ২ নেতার স্মরণ সভা  বাকেরগঞ্জে মহান শহীদদিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন লক্ষীপুর জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন সভাপতি জসিম সম্পাদক বিপ্লব অদ্বৈত মল্লবর্মণ সাহিত্য পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে শেষ হলো তিন দিনব্যাপী ২য় অদ্বৈত গ্রন্থমেলা ২০২৪

ছয় টাকা দিয়ে খালপাড়ে মেসে থাকতাম: পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রথম নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১২৪ জন দেখেছে

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, “আমি স্বল্প আয়ের মানুষ ছিলাম। ঢাকায় একা ছিলাম। আমার পরিবার এখানে ছিল না। আমি কম দামে মেসে থাকতাম যার মাসিক ভাড়া ছিল মাত্র ৬টার।আর খাওয়া খরচ মাত্র ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। আমি একটা কাঠের তৈরি মেসে থাকতাম।’

বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) রাজধানীর ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশে (আইডিইবি) মুজিব মানে বাংলাদেশ স্মৃতিসৌধের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব ইলিয়াস কাঞ্চন, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন, প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু প্রমুখ।

ছাত্র জীবনের কথা স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, পকেটে টাকা না থাকলেও আমরা অনেক আনন্দ করেছি। দুপুরে পল্টন ময়দানে খেতাম। কেউ ভাষণ দিচ্ছে, ভাগ্য ভালো হলে বঙ্গবন্ধুকে পেতাম। এটি অন্য ধরনের রোমাঞ্চকর। কখনো মালিবাগ, কখনো স্বামীবাগ, কখনো ধানমন্ডি গিয়েছি বক্তৃতা শুনতে। তার পকেটে টাকা ছিল না। কোনোভাবে চলে যেত। এভাবে পুরো কৈশর কেটে গেছে।

পাকিস্তানে ছাত্র জীবনের কথা স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, “আমি পঞ্চাশের দশকে পাঞ্জাবে গিয়েছিলাম পাঁচ বছর পড়ার জন্য। আমি তখন কিশোর। আমার তরুণ মন, আমি আমার মাকে পাঞ্জাবের সুনামগঞ্জে রেখে এসেছি। অবাঙালি, উর্দু ভাষা, ভাত, মাছ, মাংস নেই সব কিছুই আমার মনের বাইরে ছিল।

“প্রথমবারের মতো, আমি ব্যবধান বুঝতে পারি,” তিনি বলেছিলেন। আমি শুধু বাংলা ভাষা জানতাম। এই প্রথম বুঝলাম একটা ফাঁক আছে। আমরা সবাই শিশু-কিশোর ছিলাম, কিন্তু তারপরও পাকিস্তানিরা নানা আচরণের শিকার হয়েছি। মনে মনে জানতাম ওদের আর আমাদের মধ্যে একটা ব্যবধান ছিল। আমাদের বেশিরভাগ শিক্ষক ছিলেন ব্রিটিশ সাদা। ক্যাডেট কলেজে ২০০ জন শিক্ষার্থী ছিল। এর মধ্যে ৩০ জন বাঙালি এবং বাকিরা অবাঙালি। এটি একটি মহান সাংস্কৃতিক চাপ ছিল. নিজের ভাষায় কথা বলার সুযোগ ছিল কম। খাবারের কথা এলে মায়ের রান্না মিস করতাম।

মন্ত্রী বলেন, “সে দেশের শিক্ষকদের অপমানের কারণে আমি সবচেয়ে বেশি কষ্ট পেয়েছি। এত কষ্ট পেয়েছি। ছাত্ররা যখন মাঠে বসে আইয়ুব খানকে নিয়ে কথা বলছিল, তখন আমরা ভাবছিলাম কার সঙ্গে কথা বলব। তখন আমাদের জননেতা বঙ্গবন্ধু শুধু গর্জন করছিল।আমি আশ্রয় পেলাম।পরে দেশে ফিরে আসি ১৯৬২ সালে।১৯৬২ সালে বঙ্গবন্ধু মঞ্চ দখল করেন।বঙ্গবন্ধুর মূল লক্ষ্য ছিল দেশের মানুষকে বোঝানো।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, সূর্য পৃথিবীর শক্তির উৎস এবং আমাদের ভিত্তি স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার মধ্য দিয়ে গেছেন। আমরা বঙ্গবন্ধুর কাছে চির কৃতজ্ঞ।

সংবাদ টি শেয়ার করে সহযোগীতা করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
Design & Developed by REHOST BD